ট্রেন্ডিং নিউজ

কনটেন্ট রাইটারদের জন্য ১০টি গুরুত্বপূর্ণ টিপস

বাংলাদেশী টিভি চ্যানেলে সোফিয়ার সাক্ষাৎকারঃ এ ব্যর্থতার দায়ভার কার?

এবার লাইভ লোকেশন শেয়ারিং ফিচার নিয়ে এলো উবার!

পেপল এর দেশে না আসা নিয়ে স্যাটায়ার!

এ পর্যন্ত সবচেয়ে বেশী বিক্রি হওয়া ২০ টি মোবাইল হ্যান্ডসেট!

বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮

আবেগ ফিকে হলেও মান ভাঙ্গান

140702_EDU_GradStudentSex.jpg.CROP.promovar-mediumlarge

ফোনের ওপাশের মানুষটা মুখ ফসকে একটা কঠিন কথা বলে ফেলে। ফোনের এপাশের মানুষটা প্রচন্ড কষ্টে মুষড়ে পড়ে। সে ফোন কেটে দেয়। প্রচন্ড অভিমান হয়। তবু এপাশের মানুষটা একবুক আশা করে ফোনটা হাতে নিয়ে বসে থাকে স্থানুর মতো। রাত গভীর হতে থাকে, কিন্তু ও প্রান্ত থেকে আর ফোন আসে না।

অথচ একটা সময় ছিলো, একটু অভিমান হলেই ওপাশের মানুষটা মান ভাঙ্গাবার জন্য ওঠে পড়ে লাগতো, পাগলপারা হয়ে যেতো। তাই ও পাশের মানুষটার মান ভাঙ্গানোর কসরত দেখার লোভেই মেয়েটা ইচ্ছে করে অভিমান করতো, মেকি অভিমান করতো।

এ প্রান্তের মানুষটা বুঝতে পারলো, সম্পর্ক যত বয়স্ক হয়, কোন এক প্রান্তের আবেগগুলো ততই ফিকে হতে থাকে।

এ প্রান্তের অভিমানী মানুষটা গোটা রাতই পার করে দিলো ফোনের অপেক্ষায়। রংয়ের ছটার আবেগগুলো যে ধূসর হতে বসেছে, এটা সে কিছুতেই মানতে পারছে না। তার এখনও আবার আগের মতো মেকি অভিমান করতে ইচ্ছে হয়।

অভিমান করলে কেউ একজন এসে মান ভাঙ্গাবে – এই বিশ্বাসটা অনেক বেশী নিরাপত্তাকর। অনেক বেশী স্বস্তিকর। অনেক বেশী প্রেমময়।

অভিমান করলে এখন আর কেউ এসে মান ভাঙ্গায় না – এই বাস্তবতাটা অনেক বেশী রূঢ়, অনেক বেশী কঠিন, অনেক বেশী অসহায়।

তাই ও প্রান্তের মানুষগুলোর প্রতি অনুরোধ, আবেগগুলো ফিকে হলেও মান ভাঙ্গানো অভ্যাসটুকু ছেড়ে দিবেন না। আপনার এই অভ্যাসটা যে পরম মমতায় একজন মানুষকে ভালবাসায় আকন্ঠ জিইয়ে রেখেছে, এটা হয়তো আপনি নিজেও জানেন না।

Comments

মন্তব্য করুন

এই বিভাগের অন্যান্য পোস্ট