টমেটোঃ সবজি নাকি ফল?

 

প্রায়ই ভোজনরসিকদের মধ্যে এই বিষয়টা নিয়ে বেশ বাদানুবাদ হয়। টমেটোকে কেউ সবজি বলে বিশ্বাস করেন, আবার কেউ ফল ছাড়া অন্য কিছু ভাবতেই নারাজ। তবে আপনি কি জানেন, এই বিষয়টার সুরাহা হয়েছিলো রীতিমতো আমেরিকার আদালতে!

টমেটো টেকনিক্যালি একটা ফলের নাম, কিন্তু আজ থেকে প্রায় ১২০ বছর আগে টমেটোকে ‘সবজি’ হিসেবে রায় দিয়েছে আমেরিকার সুপ্রিম কোর্ট।

টমোটোর পরিবহনে যে ব্যয় হয়, সেটা পুনরুদ্ধার করতে ১৮৯৩ সালে নিক্স ফ্যামিলি মামলা ঠুকেছিলো নিউ ইয়র্ক পোর্ট এর কালেকটর এডওয়ার্ড হ্যাডেনের বিরুদ্ধে। মামলাটি হয়েছিলো ১৮৮৩ সালের ট্যারিফ আইনের অধীনে। যেটাতে বলা হয়েছে, আমদানিকৃত সবজির উপর ভোক্তাদের কর দিতে হবে। কিন্তু ফলের উপর দিতে হবে না। যদি টমেটো ফল হয়, তবে সেক্ষেত্রে কোন কর দিতে হবে না। কিন্তু সবজি হলে দিতে হবে। এবং এইখানেই ঝামেলাটার শুরু।

নিক্স ফ্যামিলি বল্ল, টমেটো যেহেতু একটা ফল, সেহেতু এর বাবদ আমরা কোন ট্যাক্স দিবো না। অপরদিকে ট্যাক্স কালেকটর বল্ল, উহু, টমেটো হচ্ছে একটা সবজি, সুতরাং আপনাদের ট্যাক্স দিতে হবে। এই নিয়ে তর্কাতরকি গড়ালো আদালত পযন্ত। নিক্স পরিবারই মামলাটা ঠুকেছিলো। কিন্তু মামলার রায় তাদের পক্ষে যায়নি।

ফুলের বোটা থেকে যদি কোন বিচিযুক্ত খাদ্যশস্য উৎপন্ন হয়, তবে তাকেই বোটানির পরিভাষায় ফল বলা হয়ে থাকে। এই সংজ্ঞার ভেতর টমেটোও পড়ে। তার উপর টমেটোর জুসও হয়। তাই এটা ফল। (কেউ কেউ এটা জেনেও বিস্মিত হবেন যে, যুকিনিও একটা ফল। সবজি নয়।)

তবে সমস্যা হলো, জনসাধারনের ধারনা, কিংবা রন্ধনবিজ্ঞানের পরিভাষা বোটানির সংজ্ঞা থেকে আলাদা। দুনিয়ার বেশীরভাগ লোকই টমেটোকে সবজি জ্ঞান করে। এবং এই তত্ত্বের উপর ভিত্তি করেই কোর্ট সেই মামলার রায় প্রদান করে যে, ’টমেটো একটি সবজি কারণ লোকে তাই ভাবে।” (The court essentially gave that reasoning in Nix v. Hedden: A tomato is a vegetable because people think it is.)

আসলে আলোচনাটি এখানে খুব সহজ। তো বিবাদী পক্ষের উকিলগন বল্ল, বোটানির সংজ্ঞা মেনে নিলে তো বেগুন, শসা, মরিচ আর মটরশুটিঁও সবজি। বাদী পক্ষের উকিল পাল্টা জবাব দিয়ে বল্ল, তাহলে তো আপনাদের সংজ্ঞা মানলে বাধাকপি, ফুলকপি, গাজর, আলু আর শালগমকেও ফল বলতে হয়। এমনকি সিমের বিচিকেও। সিমের বিচি তো একটা বিজ; শস্যদানা। কিন্তু এটা তো সবজি হিসেবেই লোকে চেনে।

উভয় পক্ষের বক্তব্য শুনে কোর্ট সিদ্ধান্ত নিলো, বৈজ্ঞানিক ব্যাখার সাথে টমেটোর ব্যাপারে লোকের ধ্যান ধারনার কোন মিল নাই। বিজ্ঞান বলে এক, লোকে ভাবে আরেক। এই কারনেই, আমেরিকার তৎকালীন ট্যারিফ আইন টমেটোকে ট্যাক্সের আওতায় নিয়ে আসলো সবজি হিসেবে। এবং নিক্স পরিবার তাদের টাকা ফেরত পায়নি। কালেকটরই সেই মামলায় জিতেছিলো। 😀

কোর্ট তার রায়ে বলেছিলোঃ বোটানির পরিভাষায়, শসা, মটরশুটি, কমলালেবু কিংবা পিস ফলের মত টমেটোও একটা ফল। কিন্তু যেহেতু জনগনের ভাষায় যা রান্নাঘরের বাগানে উৎপাদন করা হয়, তার সবই সবজির আওতাভুক্ত। এবং যেগুলো কাচাঁ অথবা রান্নাকরে উভয়ভাবেই খাওয়া যায়, (যেমনঃ গাজর, মূলা, শালগম, মিষ্টিআলু, বাধাকফি, লেটুস পাতা) যেগুলো ডিনারের সময় স্যূপ, মাছ বা মাংসের সাথে পরিবেশন করা হয়, সেগুলো সবজি।

টমেটো যে সবজি সেইটার বাদানুবাদে আমরা সবজির একটা পরিস্কার সংজ্ঞাও পেয়ে গেলাম এই ফাকেঁ! -_-

আমেরিকা কিন্তু এখনও কোর্টের সেই রায় ফলো করে। সেই রায় আজ পর্যন্ত বলবৎ আছে। এই রায় পরবর্তীতে আরো অনেক মামলার রায়ের ক্ষেত্রেও ব্যবহৃত হয়েছে। 🙂

সূত্রঃ বিজনেস ইনসাইডার।

Comments

comments

error: Please dont copy DhakaTonic! কপি করে লুজার রা!